Uncategorized

অপহরণের ৩০ দিন পর হাবিবউল্লাহ উদ্ধার

সাদ্দাম হোছাইন রাফি:

‌সদর উপজেলার চৌফলদন্ডী ইউনিয়নের নতুন মহাল গ্রামের মৃত আবদু সোবহানের ছেলে হাবিবউল্লাহ (৩৮)গত অক্টোবর মাসের শুরুতে অপহরণ হয়।

হাবিবউল্লাহ স্ত্রী পারভীন আক্তার জানান অপহরণের ২০ দিনের মাথায় পরিবারে ফোন অাসে ১০ লক্ষ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে অপহরণকারীরা।
হাবিবউল্লাহ এর স্ত্রী বাদী হয়ে কক্সবাজার সদর মডেল থানায় জিডি রজু করে।এস অাই রাজিবকে

দায়িত্ব দেওয়া হলো।

 

অপহরিত হাবিবউল্লাহ স্ত্রী পারভীন আক্তার দাবি তার স্বামী হাবিবউল্লাহ চৌখলদন্ডী একই গ্রামের কালা পুতু থেকে বিদেশে ভিসা বাবদ ৩০ লক্ষ টাকা পাওনা ছিল।পাওয়া টাকা খুজলে হুমকি ধুমকি দিয়ে  আসছিল।আর তারাই হাবিবউল্লাহকে মেরে ফেলতে অপহরণ করেছে।চৌফলদন্ডী কালা পুতু থেকে প্রায় ৫/৬ টি ডাকাতি,অস্ত্র,মারামারি,দখলবাজি সহ বেশ কিছু মামলার সাজাপ্রাপ্ত অাসামী।

গত দুই দিন অাগে স্হানীয় পুলিশ প্রশাসনের সহযোগিতায় ও কালা পুতুকে গ্রেফতার করা হয়।পুলিশ বলে হাবিবউল্লাহকে নি:শর্ত ও অক্ষত অবস্থায় ছেড়ে দিলে তারা কালা পুতুকে ছেড়ে দিবে।

পরিবারের তত্ত্ব মতে,দীর্ঘ ৩০ দিন পর অাজকে এই শর্তের ভিত্তিতে বান্দরবান লামা উপজেলা থেকে স্হানীয় পুলিশ বিটের সহযোগিতায় ও কক্সবাজার থানার যৌথ অভিযানের মাধ্যমে হাবিবউল্লাহকে জীবিত অবস্থায় ফেরত পাওয়া গেছে।

তবে তার শরীরে খুব বেশি অাঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে।তাকে মুখ ও চোখ বেধে রেখে ৩০ দিন মুক্তিপণের দাবিকৃত টাকার জন্য অত্যাচার নির্যাতন করা হয়েছে।
হাবিবউল্লাহ পরিবার ও এলাকার লোকজন এই ঘটনায় জড়িত মুক্তিপণ দাবিকারী সন্ত্রাসী বিভিন্ন মামলার পলাতক অাসামী কালাপুতু গ্যাংদের অবিলম্বে  দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছে।

কক্সবাজার সদর থানার এস আই রাজিব বলেন,অপহরণকারীদের একজন গ্রেপ্তার করা হয়েছে।বাকিদের ধরতে অভিযান চলছে।

 

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close
Close